বাগেরহাটে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে যোগ্য প্রার্থী দিতে ব্যর্থ বিএনপি

0
297

বাগেরহাট প্রতিনিধি:

বাগেরহাটে বিএনপি আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে যোগ্য প্রার্থী দিতে পারেনি। এজন্য বিএনপির ত্যাগী নেতারা দলের সাংগঠনিক দূর্বলতাকে দায়ী করছেন। বিএনপির উপজেলা পর্যায়ে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের পদে থাকা গুরুত্বপূর্ন এসব নেতারা তাদের এলাকার নিজ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে যোগ্যপ্রার্থীকে মনোনয়ন দিতে পারেনি বলে ত্যাগী নেতাদের অভিযোগ । এবারের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়েও কোন কোন প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করে জমা দেননি। আবার অনেক প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করেননি বলে দলীয় নেতারা জানান। দলীয় সুত্রে জানাগেছে, বাগেরহাটের জেলার চিতলমারী ও মোল্লাহাট উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে বিএনপি থেকে চেয়ারম্যান পদে কোন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দিতে পারেনি। মংলা উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদকের নিজ ইউনিয়ন সোনাইতলা থেকে কোন প্রার্থী মনোনয়ন জমাদেননি। বুড়ির ডাঙ্গা ইউনিয়নের দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করে জমা দেয়নি। এছাড়া একই উপজেলার মিঠাখালী ইউনিয়নে ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে ছাত্রদলের সদস্য মোল্লা সফরুল হায়দার সুজনকে প্রার্থী দিয়েছেন। এদিকে রামপাল উপজেলা বিএনপির সভাপতির নিজ সদর ইউনিয়নে ত্যাগী ও যোগ্যপ্রার্থী না দিয়ে দায়সারা ভাবে ছাত্রদলের সদস্য মাসুদুর রহমান পিয়ালকে মনোনয়ন দিয়েছেন। এছাড়া মল্লিকের বেড় ইউনিয়নে কেউ মনোনয়ন সংগ্রহ করেনি, রাজনগর ও গৌরাম্ভা ইউনিয়নে প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দেয়নি। পেড়িখালী ইউনিয়নে ঋনের দায়ে মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। কচুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সম্পাদকের বাড়ি থাকলেও এই ইউনিয়নে বিএনপি চেয়ারম্যান পদে কোন প্রার্থী দিতে পারেনি। এছাড়া উপজেলার বাধাল, মঘিয়া, রাঢ়িপাড়া ইউনিয়নেও শক্তিশালী প্রার্থী দিতে পারেনি বিএনপি।বাগেরহাট সদর উপজেলার ৫ ইউনিয়ন যাত্রাপুর, ডেমা, গোটাপাড়া, বিষ্ণপুর ও বেমরতা ইউপিতে মনোনয়নপত্র জমা দেয়নি বিএনপি দলীয় প্রর্থীরা। এছাড়া খানপুর ইউনিয়নে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিল হয়ে যায়। দলের ত্যাগী নেতারা মনে করেন, দলীয় সাংগঠনিক দুর্বলতার কারনে অনেক ইউনিয়নে যোগ্য প্রার্থী না দেওয়ায় দল ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বাগেরহাট জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম খান বলেন, এক এগারো পর থেকে বাগেরহাটে জেল্ াবিএনপির সাংগঠনিক অবস্থা দুর্বল হতে থাকে। এমন কি দলের দীর্ঘ দিনের ত্যাগী নেতাদের অবমূল্যায়ন এবং ব্যাক্তি চর্চায় সাংগঠনিক কর্মকান্ড দলকে বিপর্যের দিকে ঠেলে দিয়েছে। ফলে বর্তমানে বাগেরহাট জেলার উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে কোন কার্যক্রম নেই। সাম্প্রতি জেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগেও যোগ্য ও ত্যাগী নেতাদের বাইরে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। ওই নেতা আরো বলেন, দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার কাছে জেলার সকল কমিটিতে যোগ্য ও ত্যাগী নেতাদের নিয়ে কমিটি পুন:গঠন করার দাবি জানান।
বাগেরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি এম এ সালাম দলের সাংগঠনিক দুর্বলতার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের চাপের মুখে দলীয় প্রার্থীরা মনোনয়ন পত্র জমা দিতে পারেননি। আবার অনেক প্রার্থীর মনোনয়নপত্র ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যাদের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে তারা সবাই যোগ্য।দলের মধ্যে যারা সাংগঠনিক দূর্বলতার কথা বলছেন তারা বিএনপির মঙ্গল চান না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here