ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে বগুড়ায় আ’লীগ-বিএনপির সংঘর্ষঃ আহত-১০ঃ আটক ৫

0
344

বগুড়া প্রতিনিধি : আগামী ২৩এপ্রিল তৃতীয় দফায় ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে বগুড়া গাবতলীর রামেশ্বরপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ, মোটর সাইকেল, দোকানাপাট ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় এক ছাত্রলীগ কর্মী, ৪ পুলিশসহ প্রায় ১০জন আহত হয়েছে। শনিবার রাতে উপজেলার রামেশ্বরপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ৭৬রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। এ ঘটনায় পুলিশ ৫জনকে আটক করেছে।
জানা গেছে, গাবতলীর রামেশ্বরপুর ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল ওহাব মন্ডলের নির্বাচনী আলোচনা সভা বিকেলে স্থানীয় হাইস্কুল মাঠে প্রস্তুতি নেয়। এ সময় আওয়ামীলীগ সমর্থিতরা আ’লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী রফি নেওয়াজ খান রবিনের পক্ষে নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে গণসংযোগ করে স্থানীয় বাজারে চা খাচ্ছিল। এমন সময় বিএনপি সমর্থিত একদল সন্ত্রাসী আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সমর্থকদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে ১১/১২টি বিভিন্ন ব্যান্ডের মোটর সাইকেল আগুনে পুড়িয়ে দেয় এবং শামীম আহম্মেদ (২৮)নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। সে এখন বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এ ঘটনার পরপরই উত্তেজিত জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে রামেশ্বরপুর বাজারে এসে ১৫/১৬টি দোকান ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দেয়। পরে সারিয়াকান্দি ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌছার পূর্বেই দোকানপাট পুড়ে ভষ্মিভূত হয়। এ সময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে থানার ওসি শাহিদ মাহমুদ খানসহ সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থলে গিয়ে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনতে ৭৬রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। এ সময় এসআই ফিরোজ, আলিম, কনষ্টেবল আহসান ও আশরাফ আহত হন। পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল) সাব্বির আহম্মেদ সরফরাজসহ অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রনে আসে। এঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে গেস্খফতার করেছে। আটকরকৃতরা হলো উপজেলার রামেশ্বপুর ইউনিয়নের নামাজপুর মোল্লাপাড়া গ্রামের আঃ বারী (৩২), রঞ্জু (৩০), তেজোপাড়া গ্রামের মামুন (৩২), মাঝপাড়া গ্রামের শফিকুল (২৫) এবং কাগইলের দাসকান্দি গ্রামের সাবলু (২২)।
এ ব্যাপারে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল ওহাব মন্ডল জানান, গতকাল বিকেলে রামেশ্বরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিএনপির নির্বাচনী বর্ধিত সভা ছিল। সভা শুরুর পরপরই আ’লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী রফি নেওয়াজ খান রবিনের লোকজন সভাস্থলের দিকে এগিয়ে এল উত্তেজিত জনতা তাদের ধাওয়া করে।
তবে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী রফি নেওয়াজ খান রবিন বলেন, ঘটনার সময় জাইগুলি গ্রামে তার নির্বাচনী সভা চলছিল। এ সময় চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল ওহাব মন্ডলের লোকজন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়ে ১১/১২টি মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেয় এবং দলীয় নেতাকর্মীকে কুপিয়ে জখম করেছে।
রোববার গাবতলী মডেল থানার এএসআই সুজা ঘঁনা ও ৫ জনকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here