কলাবাগান হত্যাকাণ্ড: পুলিশের হাতে গুরুত্বপূর্ণ আলামত

0
395

রাজধানীর কলাবাগানে বাড়িতে ঢুকে জুলহাজ মান্নানসহ দুজনকে খুন করে পালিয়ে যাওয়ার সময় হামলাকারী এক যুবকের হাত থেকে এক এএসআইয়ের ছিনিয়ে নেওয়া ব্যাগে গুরুত্বপূর্ণ আলামত পাওয়া গেছে বলে দাবি করছে পুলিশ। সোমবার বিকালে লেকসার্কাসের ওই বাড়িতে ঢুকে টি শার্ট ও প্যান্ট পরা যে যুবকরা হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছিল, তাদের হাতে ল্যাপটপের ব্যাগ থাকার কথা জানিয়েছিলেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। জোর করে ঘরে ঢুকে জুলহাজ ও তার বন্ধু মাহবুব রাব্বী তনয়কে কুপিয়ে হত্যার আগে বাড়ির এক দারোয়ানকে আঘাত করে হামলাকারীরা।

যাওয়ার সময় তাদের আটকাতে গিয়ে এএসআই মমতাজ জখম হন বলে জানান ডিএমপির জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার শিবলী নোমান। তিনি বলেন, এএসআই মমতাজ হামলাকারীদের একজনের কাছ থেকে একটি ব্যাগ ছিনিয়ে রাখেন। ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশ খুনিদের একটি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়েছে। সেখানে গুরুত্বপূর্ণ আলামত পাওয়া গেছে। ওই ব্যাগে মোবাইল ফোনসহ কিছু জিনিস পাওয়া গেছে বলে এক পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তবে বিস্তারিত কিছু কোনো কর্মকর্তাই বলতে চাননি।

আহত এএসআই  মোমতাজকে বেসরকারি একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত দারোয়ান পারভেজ মোল্লা চিকিৎসাধীন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। দুর্বৃত্তদের হাতে আগ্নেয়াস্ত্র থাকলেও সমকামী অধিকারের পক্ষে সরব জুলহাজ এবং নাট্যকর্মী মাহবুব রাব্বী তনয়কে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় বলে দারোয়ান পারভেজ জানান। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বিকাল ৫টার দিকে তিন যুবক পার্সেল দেওয়ার কথা বলে জুলহাজ মান্নানের ফ্ল্যাটে যেতে চান। তাদের ঢুকতে দিয়ে তিনিও পেছন পেছন দোতলায় ওঠেন।

দরজা নক করলে জুলহাজ স্যার দরজা খোলেন। তাদের দেখে আবারও দরজা বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। তখন তারা বাসায় জোর করে ঢুকতে চায়। আমি তাদের বলি, স্যার যেহেতু ঢুকতে দিতে চান না, আপনারা চলে যান। এ কথা বলার পরই আমাকে আঘাত করে। পারভেজ লুটিয়ে পড়লে ওই যুবকরা জোর করে ঘরে ঢুকে জুলহাজ ও তার সঙ্গে থাকা অন্যজনকে (তনয়) কোপাতে থাকে বলে জানান দারোয়ান পারভেজ। বাংলাদেশে গত কয়েক বছরে লেখক, অধ্যাপক, প্রকাশক, অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট হত্যাকাণ্ডের ক্ষেত্রেও একইভাবে চাপাতি ব্যবহারের নজির দেখা গেছে। কয়েকটি ঘটনায় ল্যাপটপের ব্যাগের ভেতরে চাপাতি বহনের নজিরও পেয়েছে পুলিশ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here