শচিনের ‘বিশাল’ রেকর্ডে নজর ইংলিশ অধিনায়ক এলিস্টার কুকের

0
214

ক্রিকেট কিংবদন্তী শচিন টেন্ডুলকারের রেকর্ডে চোখ ইংল্যান্ড অধিনায়ক এলিস্টার কুকের। আর মাত্র ৩৬ রান সংগ্রহ করতে পারলেই অপেক্ষাকৃত তরুণ ক্রিকেটার হিসেবে ১০ হাজার টেস্ট রানের মাইলফলক স্পর্শ করবেন কুক। যে রেকর্ড বইয়ে ইতোমধ্যে নাম লিখিয়েছেন ভারতের লিটল মাস্টার শচিন টেন্ডুলকার। এ রেকর্ড স্পর্শ করতে সক্ষম হলে প্রথম কোনো ইংলিশ ক্রিকেটার হিসেবে ১০ হাজার রান ক্লাবের সদস্য হবেন কুক। শুধু তাই নয়, বয়স বিবেচনায় অপেক্ষাকৃত তরুণ ক্রিকেটার হিসেবে ১০ হাজার রান সংগ্রহে শচিনকে টপকে যাবেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান।
এই রেকর্ড গড়ার লক্ষ্যে সফরকারী শ্রীলংকার বিপক্ষে আগামী ১৯ মে টেস্ট মিশনে নামবেন ৩১ বছর বয়সী এই টেস্ট অধিনায়ক। ১৯ মে লীডসে প্রথম টেস্ট দিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজ শুরু করবে ইংল্যান্ড-শ্রীলংকা।
ইএসপিএন ক্রিক ইনফোকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কুক বলেন, ‘মাইলফলক হচ্ছে আপেক্ষিক একটি বিষয়। কারণ, যখন আপনি ৪ হাজার রান সংগ্রহ করবেন তখন আপনার নজরে থাকবে ৫ হাজার রান। এর পর লক্ষ্য থাকবে ৬ হাজারের দিকে। যখন আপনি সেখানে পৌঁছাবেন তখন অনুভব করবেন এর আগে যেটি ভেবেছিলেন সেটি খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিলো না।’
তিনি বলেন, ‘তবে ১০ হাজার রানের মাইলফলকটি একজন ব্যাটসম্যানের জন্য বিশাল একটি অর্জন। কারণ, ১০ হাজার রান সংগ্রহকারীর বিপক্ষে আপনি নিশ্চয়ই তর্কে যেতে পারবেন না। আপনি কিভাবে ওই রান সংগ্রহ করেছেন সেটি কোনো বিষয় নয়। এটি বিশাল একটি সংগ্রহ। এ জন্য আপনাকে বিভিন্ন কন্ডিশনে দীর্ঘ সময় ধরে পরীক্ষা দিতে হয়েছে। তাই সেই মাইলফলকে আপনি যখন পৌঁছতে সক্ষম হবেন তখন সেটি হবে দারুণ বিষয়।’
১০ হাজার রানে পৌঁছাতে পারলে কুকই হবেন ইংলিশ ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম কোনো ব্যাটসম্যান যিনি ওই মাইলফলকে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবেন। কুকের আগে গ্রাহাম গুচ সংগ্রহ করেছিলেন ৮৯০০ রান। যা ছিলো ইংলিশ ক্রিকেটে এ পর্যন্ত সর্বাধিক সংগ্রহ। ৪১ বছর বয়সে অবসরগ্রহণ করেন গুচ।
গুচের পরের অবস্থানে ছিলেন কেভিন পিটারসন। যিনি সংগ্রহ করেছেন ৮১৮১ টেস্ট রান। কিন্তু যতদিন কুক অধিনায়ক এবং এন্ড্রু স্ট্রস ক্রিকেট পরিচালক থাকবেন ততদিন ইংল্যান্ডের হয়ে তার ভবিষ্যৎ অন্ধকার।
এটি ঠিক যে, কুক টেস্ট ক্রিকেট থেকে বিদায় না নেয়া পর্যন্ত ইংলিশ ক্রিকেটের জন্য একটি মাইলফলক রচনা করবেন। তবে তিনি যে খুব বেশী দূর যেতে পারবেন তা নয়। কারণ এসেক্সের সঙ্গে তিনি মাত্র দুই বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। আর সম্ভবত ২০১৭-১৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এ্যাশেজ সিরিজই হবে তার নেতৃত্বে শেষ সিরিজ। কারণ, এমসিজিতে যখন তিনি বক্সিং ডে টেস্টে অবতীর্ণ হবেন তখন তার বয়স হবে ৩৪ বছর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here